রবিবার,২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ৮ই জমাদিউস-সানি, ১৪৩৯ হিজরী

 
 

বিশ্ব ব্যাংকের সাবেক প্রেসিডেন্ট একটা অপদার্থ বললেন অর্থমন্ত্রী।মূলত প্রকৃত অপদার্থ কে?

 

বিশ্ব ব্যাংকের সাবেক প্রেসিডেন্ট রবার্ট বি জুয়েলিককে ‘একটা অপদার্থ, ভয়ঙ্কর ধরনের বদমায়েশ ও অত্যন্ত বাজে লোক’ বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। সোমবার (৫ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় রাজস্ব বোর্ড সম্মেলন কক্ষে ‘ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা-২০১৮’-এ অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে সর্বোচ্চ ভ্যাট প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানকে ভ্যাট সম্মাননা সনদ ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এমন মন্তব্য করেন।আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, রবার্ট বি জুয়েলিকের ষড়যন্ত্রের কারণেই পদ্মা সেতুর অর্থায়ন আটকে যায়। যা পরবর্তীতে প্রমাণিত হয়েছে।তিনি উল্লেখ করেন, ‘বিশ্ব ব্যাংকের ওই প্রেসিডেন্টের কারণেই আমরা চারজন মানুষ অপদস্থ হয়েছিলাম। মসিউর রহমানকে পদত্যাগ করতে হয়েছিল। সাবেক যোগাযোগ মন্ত্রী আবুল হোসেনকেও সরিয়ে দেওয়া হয়। আমি তখন বার বার বলেছিলাম, এটা ষড়যন্ত্র। কিন্তু সেটা তখন আমলে নেওয়া হয়নি।’অর্থমন্ত্রী যখন বিশ্ব ব্যাংকের সাবেক প্রেসিডেন্টের সমালোচনা করছিলেন, তখন তার পাশে বসা ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান, সাবেক যোগাযোগ মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন ও এনবিআর চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া।আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, ‘‘ওই সময় প্রধানমন্ত্রী প্রথম বুঝতে পেরেছিলেন। তিনিই প্রথম বললেন, ‘এটা ষড়যন্ত্র, বিশ্ব ব্যাংকের কাছে থেকে অর্থ নেওয়া বন্ধ করে দেন।’ আমি তখন রাজি হইনি। আমার চিন্তা ছিল এই অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণ করতেই হবে।

 

একই সঙ্গে বিশ্ব ব্যাংকের এ ধরনের মিথ্যা অভিযোগ প্রত্যাহার করে নিতে হবে।’’অর্থমন্ত্রী বলেন, অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণের এ যুদ্ধ আমরা অনেক দিন চালিয়ে গেলাম। পরবর্তীতে আরেকজন নতুন প্রেসিডেন্ট এলেন। তিনি এসে ওই বছরের জানুয়ারিতে পদ্মা সেতু প্রকল্পে অর্থায়ন করার কথা বললেন, তবে তখন পদ্মা সেতু নিয়ে নতুন করে ফিজিবিলিটি স্টাডি করার কথা জানালে, আমরাই বিশ্বব্যাংকের অর্থ নেওয়া থেকে সরে এলাম। কারণ, ওই অর্থ নিতে গেলে সময়ক্ষেপণ হবে।

 

আরও প্রায় বছর খানেক বেশি লাগবে।অর্থমন্ত্রী যখন বিশ্ব ব্যাংকের সাবেক প্রেসিডেন্টের সমালোচনা করছিলেন, তখন তার পাশে বসা ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান, সাবেক যোগাযোগ মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন ও এনবিআর চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া।আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, ‘‘ওই সময় প্রধানমন্ত্রী প্রথম বুঝতে পেরেছিলেন। তিনিই প্রথম বললেন, ‘এটা ষড়যন্ত্র, বিশ্ব ব্যাংকের কাছে থেকে অর্থ নেওয়া বন্ধ করে দেন।’

আমি তখন রাজি হইনি। আমার চিন্তা ছিল এই অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণ করতেই হবে। একই সঙ্গে বিশ্ব ব্যাংকের এ ধরনের মিথ্যা অভিযোগ প্রত্যাহার করে নিতে হবে।’’অর্থমন্ত্রী বলেন, অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণের এ যুদ্ধ আমরা অনেক দিন চালিয়ে গেলাম। পরবর্তীতে আরেকজন নতুন প্রেসিডেন্ট এলেন। তিনি এসে ওই বছরের জানুয়ারিতে পদ্মা সেতু প্রকল্পে অর্থায়ন করার কথা বললেন, তবে তখন পদ্মা সেতু নিয়ে নতুন করে ফিজিবিলিটি স্টাডি করার কথা জানালে, আমরাই বিশ্বব্যাংকের অর্থ নেওয়া থেকে সরে এলাম। কারণ, ওই অর্থ নিতে গেলে সময়ক্ষেপণ হবে। আরও প্রায় বছর খানেক বেশি লাগবে।‘তখন আমরা বললাম, এটা বাতিল হোক। আমরা নিজেদের অর্থেই করে ফেলবো।

কারও কাছে যাবো না। তখনই পদ্মা সেতু নিজ অর্থায়নে করার একটা সিদ্ধান্ত নেওয়া হলো। এটা নিয়ে এত ঝামেলা হয়েছে যে আর কারও কাছে সহায়তা চাইলাম না।’অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, ‘খুশির খবর হলো নিজস্ব অর্থায়নে এটি বাস্তবায়ন হচ্ছে। আমার ধারণা, আগামী বছরের মার্চ নাগাদ যান চলাচল করবে। তবে মার্চে না হলেও আগামী বছরের জুনে পদ্মা সেতু দিয়ে যান চলাচল করবে। আমাদের ওবায়দুল কাদের চেয়েছিলেন,যেন এর কাজ ডিসেম্বরেই শেষ করতে পারেন।

কিন্তু সেটা সম্ভব হবে না। তবে জুন নাগাদ যান চলাচলের জন্য আমরা খুলে দিতে পারবো।’ওই সময়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া সেতু সচিব ছিলেন। তিনি বলেন, ‘ওই সময় এখানে উপস্থিত আমরা চারজনই ভিকটিম ছিলাম। পরবর্তীতে সেটা প্রমাণিত হয়েছে। বিশেষ করে কানাডার আদালতের সেই রায় বিষয়টি পরিষ্কার করে দিয়েছে।’প্রসঙ্গত,রবার্ট বি জুয়েলিক ২০০৯ সালের জুলাই থেকে ২০১২ সালের জুন পর্যন্ত বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করেন। তার সময়ই আলোচিত পদ্মা সেতুর ১২০ মিলিয়ন ডলার সমপরিমাণ ঋণ চুক্তি আটকে যায়। পরবর্তীতে বিশ্ব ব্যাংকের টাকা না নিয়ে নিজস্ব অর্থায়নে সেতু করার ঘোষণা দেয় সরকার।

আজকে

  • ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
  • ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং
  • ৮ই জমাদিউস-সানি, ১৪৩৯ হিজরী
 

সোশ্যাল নেটওয়ার্ক

 

Express News

 
 
 
প্রধান সম্পাদকঃ এম এ জাহান। চেয়ারম্যানঃ ছিদ্দিকুর রহমান।
উপদেষ্টাঃ আঃ বাছিদ আছিদ। পরিচালনায়ঃ আবুবকর ছিদ্দিক।
পৃষ্ঠপোষকঃ আঃ জলিল ভূইয়া।
সিনিয়র রিপোর্টারঃ মোঃ জিয়াউর রহমান,মোঃ ইউছুপ মনির ,মোঃ হারুনুর রশিদ,রাসেল আহাম্মেদ,এ এস হিরু,মোঃ শুকুর আলী,এস আর সাইফুল।